শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৩

নতুন সভ্যতা

বিকেলের পড়ন্ত বেলা সূর্যের লাল আলো
মাঠ ভরা ধান হয়েছে অতীত কালো
শান্ত নদী ধীর ছন্দ লয়
স্বচ্ছ শীতল জল ধীর গতি বয়
হারায়ে গেল হায়
কালো ধোঁয়া হাত বাড়ায়

সৃষ্টির প্রথম ধাপে পৃথিবী ভরে ছিল সবুজ ছোপে
সেই সবুজ যার পড়েনি কেও কোপে
নির্মল অমৃতসম বাতাস
দিয়েছিল যা প্রানের আশ্বাস
সবই আজ বহুদূর
বহেনা প্রানের নির্ঝর সুর

ভোরের আলো যখন ফুটল
মালতী লতার ঘুমটি ভাঙল
আলোকে করে সে সিনান
মধুকরেরে জানায় সে আমন্ত্রণ
বাতাস যে মিঠে বয়
এই মিঠে যারে সুবাস কয়

পাখির কলতান, দেবতার আহ্বান বাতাসে ভাসত
কাননে কাননে সাড়া যে জাগত
ভোরের শিশির চুপচাপ
ঝড়ে পরত টুপটাপ
মুক্তোসম হাসি
ঘাসের ডগায় আসি

কল কোলাহল বেড়েই চলত
রাখাল কিছু পথে নামত
শোনা যেত মন উদাস করা
বেদনা আনন্দ বিষাদ ভরা
রাখাল বাঁশি ওরে
মনকে পাগল করে ফেরে

চির শ্যামল ঐ গাঁয়ের পড়ে
চাষির দল যে উঠত বেড়ে
নিত্য মাঠে ঘষে মেজে
ফলাই সোনা প্রচুর শ্রমে
এটাই পারে জীবন দিতে
নতুবা জীবন কোথাই মিতে

দূর্বার শ্রম, ফুলে ওঠে পেশী
হাঁপর চলে ফুসফুসে বেশী
তবুও মাটি করছে কর্ষণ
জীবন ধরায় চলেছে ঘর্ষণ
তাইত ধরায় অন্ন অমৃত
এতো জীবনের একক সত্য

হাসি দুঃখের পালা গান গেয়ে
জীবন তাদের যাচ্ছিল বয়ে
হঠাৎ ঐ আকাশটাকে
কালো মেঘ কেন যে ঢাকে
রাবনের সর্বনাশা থাবা
করেছে সোনার সীতারে বোবা

চির শ্যামল ধরণী আজ
হারিয়েছে তার আবরন লাজ
উলঙ্গ ধরার বুকের উপর
দানব শিশু চালায় নখর
তার বিষাক্ত নিঃশ্বাসে হায়
জীবনের বীজ, বীজেতেই ঘুমায়

কালো ধোঁয়া তার ঢাকিতে চাহিছে
ধরার স্পন্দন কমেই আসছে
লোভ লালসা মানে না নিয়ম
উচ্ছ্রিখলতা করে বিচরন
জীবন আজিকে মূল্যহীন
সম্পদ তারে দানিয়েছে জিন

চাষার দল ধুকছে আজিকে
শৃঙখল বেড়ি পড়ায়েছে তাদেকে
হয়ে উন্মাদ ও দানব পশু
ধরার বুকে হতে চায় যীশু
হিংস্র শ্বাপদ ঈর্ষায় ভরা
ফেলিছে পথে বালি চোরা

হারায় পৃথিবীর সজীবতা, লোভের তাড়নায়
জঠরের ক্ষুদাকে ব্যাবসা বানায়
যে লোভ শুধু চাই বলি
এইতো হাওয়া যুগযে কলি
যন্ত্র হেথা আয়েস করে
মানব শিশু ক্ষুধায় মড়ে

শিশুর হাহাকার ক্রন্দন রোল
হাওয়ায় হারায়, কানে যে ঠোল
সভ্য জীবের ভব্য আচরণ
নতুন সভ্যতায় করে বিচরণ
সভ্য আমরা কত কি জানি
মোদের চেতনা মারণেরে দানি

বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল, ২০১৩

সারকথা

সারকথা

শব্দের খেয়ালে খোঁজার এক অকৃএিম চাহিদা
উড়তে চাওয়া মনে আলো ছায়ায় আল্পনা
জানি না কিসে নেওয়া কোথায় তার ধাম
জীবন মাপে সময়, ভুলে মন দোটানায়

আজিকে বাহিরে ঝড়, মনের কবিতা হওয়া
স্বপ্ন শেষের বাতি জ্বলতে জ্বলতে নিভে যাওয়া
নিজেকে ফিরে দেখা প্রতিবছর পালা বদলের তরে
হৃদয়ের আবেগগুলো নখর চালায় কোমল অন্তরে

পাব কি, কি বা হবে, কিসের লড়াই চলে জীবনযুদ্ধের
মানি না, পারিনি মানতে জীবন মানে রাজনীতির দলে
বদলাই রঙ, রঙিন দিনের ধূসর গোধূলিতে সমাপ্তি
আকুতি মিনতি কত জীবনের তরে, জানাতে নেই ক্ষান্তি

হঠাৎ শান্ত শীতল বাতাস বয়ে চলে আপন খেয়ালে
এলোচুলে হারিয়ে যাওয়া খুঁজে ফিরি নিজের নিজেকে
জীবন শুরু সকালের চায়ে, শেষ সন্ধ্যের নীলতারাতে
কর্মযুদ্ধ পরিণতি ব্যাবসাযুদ্ধে, জীবন কেনেবেচে অর্থে

ষোলআনায় খুঁজতে গিয়ে আঠারো আনায় দেনা
সেই দেনার দোসর হয়ে আসে কতই যাতনা
এক যাতনার মুক্তি লোভে, অন্য যাতনার ধার
যাতনা পাঁক মরীচিকা, কভু মিটেও মেটে না আর

তোমার আমার শান্তি খোঁজা সে এক ললনার ন্যায়
ছলনা ছাড়া মেলে না কিছুই, জীবন দাঁড়িয়ে ঠায়
দীর্ঘশ্বাসের বাতাস ফিরিছে, ঘূর্ণিবাতের সঙ্কেত
কেঁপে কেঁপে ওঠে লেলিহান শিখা জীবন চলেছে যুদ্ধে

নীতিকাব্য নীতিকথা নীতির গ্রন্থে ঘুমায়
খুঁজবে কোথায়, পাবে না হেথায় সবই সময়ে হারায়
জীবন মরু মরীচিকা বোধে ছুটে চলা নিঃসহায়
সময় এলে সোয়াস্তি আসিবে যখন চির ঘুমের গোড়ায়